আইসিটি ( অষ্টম শ্রেণি )


জেসমিন আখতার রুপা, প্রভাষক, শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজ, মিরপুর-১৪, ঢাকা
অথর
শিক্ষা বাতায়ন নিউজ ডেক্স   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :২১ মে ২০১৯, ৮:৩০ পূর্বাহ্ণ
আইসিটি ( অষ্টম শ্রেণি )

দ্বিতীয় অধ্যায়

রচনামূলক প্রশ্ন

১। নেটওয়ার্ক কাকে বলে? নেটওয়ার্কের প্রকারভেদ বর্ণনা করো।

উত্তর : নেটওয়ার্ক : দুই বা ততোধিক কম্পিউটারের মধ্যে কোনো মাধ্যম দিয়ে সংযুক্ত করলে যদি কম্পিউটারগুলোতে তথ্য আদান-প্রদান করা যায়, তবে তাকে নেটওয়ার্ক বলে। অবস্থানের ওপর ভিত্তি করে নেটওয়ার্ককে চার ভাগে ভাগ করা হয়। যথা :

১। PAN (Personal area Network)

২। LAN (Local Area Network)

৩। MAN (Metropolitan Area Network)

৪। WAN (Wide Area Network)

PAN (Personal Area Network) : PAN এর পূর্ণরূপ হচ্ছে Personal Area Network। সাধারণত ১ থেকে ১০ মিটার দূরত্বের মধ্যে নেটওয়ার্ক গঠন করা হয়। সাধারণত এ ধরনের নেটওয়ার্ক বাড়িতে, অফিসের কোনো কক্ষে বা ক্লাসরুমে ব্যবহার করা হয়।

LAN (Local Area Network) : LAN এর পূর্ণরূপ হচ্ছে Local Area Network। প্যান অপেক্ষায় বড় কিন্তু ম্যান অপেক্ষায় ছোট নেটওয়ার্ককে ল্যান বলা হয়। সর্বোচ্চ ১০ কিলোমিটার পর্যন্ত নেটওয়ার্ক বিস্তৃত হতে পারে।

MAN (Metropolitan Area Network) : MAN এর পূর্ণরূপ হচ্ছে Metropolitan Area Network। ল্যান অপেক্ষায় বড় কিন্তু ওয়্যান অপেক্ষায় ছোট নেটওয়ার্ককে ম্যান বলা হয়। সাধারণত কোনো শহরে বিভিন্ন স্থানে অবস্থিত কম্পিউটারের মধ্যে নেটওয়ার্ক স্থাপন করার জন্য এ ধরনের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করা হয়।

WAN (Wide Area Network) : WAN এর পূর্ণরূপ হচ্ছে Wide Area Network। একই দেশের অনেক শহরের মধ্যে বা এক দেশ থেকে অন্য দেশের মধ্যে এ ধরনের নেটওয়ার্ক গঠিত হয়। মূলত অনেকগুলো প্যান (PAN), ল্যান (LAN), ম্যান (MAN)-এর সমষ্টিগত রূপই হচ্ছে ওয়্যান (WAN)

২। স্টার টপোলজি কী? চিত্রসহ স্টার টপোলজির বর্ণনা দাও।

উত্তর :

স্টার টপোলজি : যে টপোলজিতে নেটওয়ার্কের সব কম্পিউটার একটি কেন্দ্রীয় ডিভাইসের সঙ্গে যুক্ত থাকে তাকে স্টার টপোলজি বলে। কেন্দ্রীয় ডিভাইস হিসেবে হাব বা সুইচ ব্যবহার করা হয়।


চিত্র : স্টার টপোলজি

বৈশিষ্ট্য :

(i) কেন্দ্রীয় ডিভাইস হিসেবে হাব বা সুইচ ব্যবহার করা হয়।

(ii) সব নোড কেন্দ্রীয় ডিভাইসের সঙ্গে যুক্ত থাকে।

(iii) কোনো একটি কম্পিউটার নষ্ট হলে নেটওয়ার্কের কোনো সমস্যা হয় না।

(iv) কেন্দ্রীয় ডিভাইসের সঙ্গে সহজে নতুন কম্পিউটার যুক্ত করা হয়।

(v) কেন্দ্রীয় ডিভাইসটি নেটওয়ার্কের ডাটা চলাচলকে নিয়ন্ত্রণ করে।

(vi) রিং ও বাস টপোলজির তুলনায় এই টপোলজিতে কেবল বেশি লাগে।

(vii) একই নেটওয়ার্কে বিভিন্ন ধরনের কেবল ব্যবহার করা যায়।

No Comment.