আবারও বেড়েছে দেশি পেঁয়াজের দাম


অথর
অর্থনৈতিক ডেক্স   ব্যবসা বানিজ্য
প্রকাশিত :২১ ডিসেম্বর ২০১৯, ৯:৫৮ পূর্বাহ্ণ
  • 6
    Shares
আবারও বেড়েছে  দেশি পেঁয়াজের দাম

বাজারে নতুন পেঁয়াজ ওঠার পর দাম কিছুটা কমলেও আবারও বাড়তে শুরু করেছে। গত সপ্তাহের তুলনায় রাজধানীর বাজারগুলোতে দেশি পেঁয়াজের দাম কেজিতে ২০-৩০ টাকা বেড়েছে। ভরা মৌসুমেও পেঁয়াজের দাম বাড়ায় ক্রেতারা ক্ষুব্ধ। শীতের সবজির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। তবে কিছু সবজির দাম কমেছে। রাজধানীর মালিবাগ ও রামপুরা কাঁচাবাজার ঘুরে এ চিত্র পাওয়া গেছে।আমদানি করা ছোট পেঁয়াজ ১২০-১৩০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। যা গত সপ্তাহে ছিল ১০০-১২০ টাকা। নতুন দেশি পেঁয়াজের দামও বেড়েছে। নতুন পেঁয়াজ ১০০-১২০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহে দাম ছিল ৭০-৮০ টাকা। রামপুরা বাজারের ক্রেতা শাখাওয়াত হোসেন বলেন, পেঁয়াজের দাম কেন কমছে না, বুঝতে পারছি না। খুচরা বিক্রেতারা বলছে

পাইকারি বাজারে দাম বেড়েছে। কিন্তু পাইকারি বাজারে কেন দাম বাড়ছে সেই খোঁজ সরকারের কোনো সংস্থা নিচ্ছে না। এ সুযোগে মধ্যস্বত্বভোগীরা ক্রেতাদের পকেট কাটছে।শীতের সবজির দাম গত সপ্তাহের মতো অপরিবর্তিত থাকায় ক্রেতারা কিছুটা স্বস্তিতে আছেন। কিছু সবজির দামও কমেছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, শীতের সবজির সরবরাহ বাড়ায় কিছু সবজির দাম কমেছে। এর মধ্যে শিম, পাকা টমেটো ও গাজরের দাম সবচেয়ে বেশি কমেছে। বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা পর্যায়ে শিমের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকায়। যা গত সপ্তাহে ছিল ৩০-৪০ টাকা। আর তিন সপ্তাহ আগে ছিল ১০০ টাকা কেজি। নতুন লম্বা শিমের কেজি গত সপ্তাহের মতোই ৪০-৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাজার ও মানভেদে

দেশি পাকা টমেটোর কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০-৮০ টাকা। আর আমদানি করা পাকা টমেটোর কেজি ৪০-৫০ টাকা। গাজর বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০ টাকার মধ্যে। সপ্তাহের ব্যবধানে টমেটো ও গাজরের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। নতুন গোল আলুর কেজি গত সপ্তাহের মতো ৩০-৪০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। বরবটি ৬০-৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। ফুলকপি ও বাঁধাকপি আগের সপ্তাহের মতো ৩০-৪০ টাকা পিস বিক্রি হচ্ছে। পেঁপে ৩০-৩৫ টাকা, বেগুন ৪০-৬০ টাকা, মূলা ২০-৩০ টাকা, শালগম ৩০-৪০ টাকা ও করলা ৫০-৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।সয়াবিন তেলের দামও বেড়েছে। গত সপ্তাহের ব্যবধানে তেলের দাম বেড়েছে লিটারে ২-৫ টাকা। সরকারি বিপণন সংস্থা টিসিবির তথ্যমতে, খোলা সয়াবিন তেল

বাজারে ৮৪-৮৮ টাকায় বিক্রি হয়েছে। গত সপ্তাহে ৮৪-৮৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। বোতলজাত পাঁচ লিটারের বোতল ৪৪৫-৪৫০ টাকা এবং এক লিটারের বোতল ১০০-১১০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। অবশ্য রাজধানীর বাজারগুলোতে খোলা তেল বিক্রি হচ্ছে ৮৫-৯০ টাকা। আর বোতলজাত পাঁচ লিটারের বোতল ৪৫০-৪৬০ টাকা এবং এক লিটারের বোতল ১১০-১২০ টাকা বিক্রি হচ্ছে।