ক্রেডিট কার্ডে বৈশাখী ছাড়ের হিড়িক


অথর
অর্থনৈতিক ডেক্স   ব্যবসা বানিজ্য
প্রকাশিত :১৪ এপ্রিল ২০১৯, ৩:৫৪ অপরাহ্ণ
  • 17
    Shares
ক্রেডিট কার্ডে বৈশাখী ছাড়ের হিড়িক

পহেলা বৈশাখ মানেই বাঙালির অনন্য উৎসব। সর্বজনীন ও সর্ববৃহৎ এ উৎসব মানেই কেনাকাটা, সাজগোজ ও ঘোরাফেরা। খাওয়া দাওয়াও বাদ যায় না।

বাংলা নববর্ষে বাণিজ্যের বহুমুখী সুযোগ থাকায় ব্যবসায়ীরাও নানা ছাড় দিয়ে ক্রেতার দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেন।
প্রযুক্তির এই যুগে মানুষ আর নগদ টাকার ঝুঁকি নিতে চান না। এই সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ডে নানা রকম সুবিধা নিয়ে হাজির হয়েছে।

এসব কার্ড ব্যবহার করে কেনাকাটা করলেই মিলছে নানা সুবিধা। বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে ৪১টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কার্ডে দেয়া হয়েছে নানা ছাড়।

বৈশাখের ডিজিটাল কেনাকাটায় এসব কার্ডের ব্যবহার জমজমাট হয়ে উঠেছে। সাউথইস্ট ব্যাংক তাদের কার্ডে বিশেষ ছাড়

দিচ্ছে। ব্যাংকের জ্যেষ্ঠ ভাইস প্রেসিডেন্ট ও কার্ড বিভাগের প্রধান আবদুছ সবুর খান যুগান্তরকে বলেন, ‘আমরা ৩৪টি ফ্যাশন হাউসে সব ধরনের ক্রেডিট কার্ডে সর্বোচ্চ ৬০ শতাংশ ছাড় দিচ্ছি।

এটি শুরু হয়ে গেছে। চলবে ১৪ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত। খাবারেও মিলছে বিশেষ ছাড়। একটি কিনলে একটি ফ্রি সুবিধা দেয়া হচ্ছে আটটি পাঁচ তারকা হোটেলে। মাস্টার কার্ড ওয়ার্ল্ড, মাস্টার কার্ড প্লাটিনাম ও ভিসা প্লাটিনামের গ্রাহকেরা এ সুবিধা পাচ্ছেন। এ ছাড়া ঢাকা ও চট্টগ্রামের আটটি সুপারশপে ১০ শতাংশ ক্যাশ ব্যাক সুবিধা দিচ্ছি।’

ডাচ্-?বাংলা ব্যাংকের কার্ড বিভাগের দায়িত্বশীল কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেন, বৈশাখে ১০০টি প্রতিষ্ঠানে ছাড়ের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ব্যাংকের সব ধরনের কার্ড ব্যবহারে ৩০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় পাচ্ছেন

গ্রাহক।

নেক্সাস পে-তে ৩০ শতাংশ পর্যন্ত ক্যাশব্যাক এবং রকেটে ২০ শতাংশ ছাড় রয়েছে। এ ছাড়া গুলশান, বনানী, বিমানবন্দর এলাকাসহ রাজধানীর নামি-দামি পাঁচ তারকা হোটেলে খাবারে রয়েছে আকর্ষণীয় ছাড়।

লা মেরিডিয়ান, ফোর পয়েন্টস বাই শেরাটন, বনানীর সারিনা হোটেল এবং গুলশানের সিক্স সিজনে একটি ডিনার কিনলে তিনটি ফ্রি, আমারি ঢাকা হোটেলে একটি ডিনার কিনলে দুটি ফ্রি এবং ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে একটি ডিনার কিনলে একটি লাঞ্চ, একটি ডিনার এবং একটি ব্রেকফার্স্ট ফ্রি।

ইউসিবিএলের কার্ড ডিভিশনের কাস্টমার সার্ভিস অফিসার মোল্যা নাজমুল হুসেইন যুগান্তরকে বলেন, সব ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ডে শাড়ি, পাঞ্জাবিসহ ৪০টি লাইফস্টাইল দোকানে সর্বোচ্চ ১০-২০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দেয়া হচ্ছে।
সুগন্ধির দোকানে ১২ শতাংশ, হীরার গয়নার দোকানে ৩০-৩৫ শতাংশ, স্বর্ণের গয়নার দোকানে ৩০-৫০ শতাংশ, পাঁচ তারকা হোটেলে একটি কিনলে আরেকটি খাবার ফ্রি মিলছে। জুতার দোকানে ১০ শতাংশ, বিমানে ১২ শতাংশ ছাড় মিলছে।

একমাত্র আর্থিক প্রতিষ্ঠান লঙ্কাবাংলার বিভিন্ন কার্ডেও নানা সুবিধা দেয়া হচ্ছে। প্রতিষ্ঠানের হেড অব রিটেল ফিন্যান্স খোরশেদ আলম যুগান্তরকে বলেন, বৈশাখে ভিসা ও মাস্টার ক্রেডিট কার্ডে নানা ছাড় দেয়া হচ্ছে।

বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে ১০-২২ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় রয়েছে। আড়ংয়ে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ক্যাশব্যাক দেয়া হচ্ছে। ট্রান্সকম ইলেকট্রনিকসে ১০-২৫ শতাংশ, অনলাইন-দারাজ বা ডটকম এবং গো-জায়ায় ১৫ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় মিলছে। কক্সবাজারে হোটেলগুলোতে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় থাকছে।

ইউএস বাংলা ঢাকা-ব্যাংকক-ঢাকা ফ্লাইটের ১৮ হাজার টাকার টিকিট মিলছে ১২ হাজার ৯৯৯ টাকায়। এ ছাড়া নামি ব্র্যান্ডের বিভিন্ন গয়নার দোকানে ১৫ শতাংশ পর্যন্ত এবং বিভিন্ন জুতার দোকানে ১০-১৫ শতাংশ ছাড় দেয়া হচ্ছে। কিছু খাবারের দোকানে একটি কিনলে একটি ফ্রি, ছাড়াও কিছু অফার পহেলা বৈশাখ, কিছু এপ্রিল মাসজুড়ে থাকবে।
সিটি ব্যাংকের সব ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ডে ব্র্যান্ডের পোশাকের দোকানে কেনাকাটায় সর্বোচ্চ ৩৫ শতাংশ ছাড় পাওয়া যাচ্ছে। বড় রেস্তোরাঁয় ২০ শতাংশের বেশি মূল্যছাড়, পাঁচ তারকা হোটেলে একটি কিনলে একটি বিনা মূল্যে মিলছে। ই-কমার্সের বিভিন্ন সাইট থেকে কেনাকাটায় ২০ শতাংশ ছাড় পাচ্ছেন গ্রাহক।

ব্যাংক এশিয়ার সব ক্রেডিট কার্ডে পাঁচ শতাংশ ও সর্বোচ্চ ২৫০ টাকা ক্যাশ ব্যাক পাওয়া যাচ্ছে। এ ছাড়া কে-ক্র্যাফট, অঞ্জন’স, নগরদোলা, সাদাকালো, লেইজার, সুফিসহ বেশ কিছু ফ্যাশনস হাউসে ১০ শতাংশ মূল্যছাড় দেয়া হচ্ছে। মিলছে ৫ শতাংশ ক্যাশব্যাক।

এনআরবি ব্যাংকের সঙ্গে ৩৮০টি প্রতিষ্ঠানের চুক্তি রয়েছে, যেখানে ক্রেডিট কার্ডে কেনাকাটা করলে ছাড় মিলছে। এর বাইরে ১৬০টি প্রতিষ্ঠানে কার্ডে লেনদেন করলে ৩-৬ মাসের কিস্তিতে কেনা পণ্যে শূন্য শতাংশ সুদে পাওয়া যাচ্ছে। পণ্যের দামের বাইরে গ্রাহককে আলাদা টাকা দিতে হবে না। এ ছাড়া বিভিন্ন খাবার দোকানে একটি কিনলে আরেকটি ফ্রি, গয়নায় সর্বোচ্চ ৪০ শতাংশ, পোশাকে ১০-১৫ শতাংশ, মিষ্টিতে ৫-১০ শতাংশ ছাড় পাওয়া যাচ্ছে।

স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ড দিয়ে বড় বড় সব রেস্টুরেন্ট এবং হোটেলে মিলছে সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ ছাড়। ব্যাংকের কার্ড ব্যবহার করে পোশাক, জুতা, গয়না, প্রসাধনী কেনাকাটায় মিলছে সর্বোচ্চ ১২ শতাংশ ছাড়। প্রিমিয়ার ব্যাংকের কার্ডে কেনাকাটায় পাওয়া যাচ্ছে ১০-১৫ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়।

ব্র্যাক ব্যাংকের সব কার্ডে অনলাইন দোকান দারাজ ডটকমে কেনাকাটায় ৩৫ শতাংশ ছাড় পাওয়া যাচ্ছে। আড়ং থেকে কেনাকাটায় রয়েছে বিশেষ ছাড়। এ ছাড়া বেশ কয়েকটি শোরুমে ১০ শতাংশ ছাড় দেয়া হচ্ছে। ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান বিকাশও ব্যাপক ছাড় দিচ্ছে। এ ছাড়া পণ্যভেদে ৭ থেকে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ক্যাশব্যাকের সুবিধা দেয়া হচ্ছে। বিকাশ অ্যাপসের মাধ্যমে দেনা শোধ করলে এ সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে। এ ছাড়া ওষুধ, বিমান টিকিট, হোটেল বুকিং, হোটেল ভাড়া, সুপারশপ ও অভিজাত শপিংমলগুলোতে কেনাকাটায় এ সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে। দেশের এক হাজার দোকানে ২৫০টি ব্র্যান্ডের পণ্য কেনাকাটায় ২০ শতাংশ পর্যন্ত ক্যাশব্যাক সুবিধা রয়েছে। ক্যাটাগরিভেদে ক্যাশব্যাকের কিছু সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে। ই-কমার্স ক্যাটাগরিতে ক্রেতা সর্বোচ্চ ৫০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক পেতে পারেন। অন্যসব ক্যাটাগরিতে সর্বোচ্চ ক্যাশব্যাক সীমা হাজার টাকা। অফার চলাকালে সব মাধ্যম মিলিয়ে একজন মোট এক হাজার টাকা ক্যাশব্যাক পেতে পারেন।

মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের কার্ড ব্যবহারে পাচ্ছেন ৪০টিরও বেশি লাইফস্টাইল ব্র্যান্ড এবং ৩০টিরও বেশি রেস্টুরেন্টে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়। ইস্টার্ন ব্যাংকের কার্ডে ১০ শতাংশ ডিসকাউন্ট এবং মূল্যছাড় পাবেন এক হাজার টাকা। এ ছাড়া এবি ব্যাংক, ঢাকা ব্যাংক, যমুনা ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, মিডল্যান্ড ব্যাংকসহ ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ড সেবা প্রদানকারী সব ব্যাংকও তাদের কার্ডে বিশেষ ছাড় দিয়েছে। বাংলাদেশের প্রায় ১২ লাখ গ্রাহকের কাছে ক্রেডিট কার্ড এখন নিত্যসঙ্গী।

No Comment.