প্রহসনমূলক বিচারের নামে নিরাপরাধ ব্যক্তিদের মৃত্যুদণ্ডের মতো সাজা দেয়া হচ্ছে : মির্জা ফখরুল ইসলাম


অথর
ডোনেট বাংলাদেশ ডেক্স   রাজনীতি
প্রকাশিত :১১ জুলাই ২০১৯, ১০:৫৯ পূর্বাহ্ণ
প্রহসনমূলক বিচারের নামে নিরাপরাধ ব্যক্তিদের মৃত্যুদণ্ডের মতো সাজা দেয়া হচ্ছে : মির্জা ফখরুল ইসলাম

বর্তমান আওয়ামী স্বৈরাচারী সরকারের আমলে প্রহসনমূলক বিচারের নামে নিরাপরাধ ব্যক্তিদের মৃত্যুদণ্ডের মতো সাজা দেয়া হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বুধবার রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তিনি এ মন্তব্য করেন। ‘পাবনার ইশ্বরদিতে ১৯৯৪ সালে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী ট্রেনের ওপর গুলিবর্ষণ সংক্রান্ত মামলায় পাবনা আদালতে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের যেসব নেতাদের বিরুদ্ধে নির্মম রায় দেয়া হয়েছে কয়েকদিন আগে তাদের বাড়িতে পরিবার-পরিজনকে সমবেদনা জানাতে যাওয়ার পথে কেন্দ্রীয় যুবদল নেতাদের ওপর স্থানীয় আওয়ামী-যুবলীগের চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে ব্যাপকভাবে গাড়ী ভাংচুর করে। সন্ত্রাসীদের হামলায় ১০ জন যুবদল নেতা গুরুতর আহত হন। আওয়ামী সন্ত্রাসীদের দ্বারা সংঘটিত এই

বর্বরোচিত ও ন্যাক্কারজনক ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদে’ এ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘বর্তমান আওয়ামী স্বৈরাচারী সরকারের আমলে প্রহসনমূলক বিচারের নামে নিরাপরাধ ব্যক্তিদের মৃত্যুদণ্ডের মতো সাজা দেয়া হচ্ছে। আর অন্যদিকে দাগী খুনী ও ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের সাজা মওকুফ করে দেয়া হচ্ছে। এবং ক্ষমতাসীনদের অনেকেই গুরুতর অপরাধ করেও জামিন পেয়ে যাচ্ছে। যার ফলে বর্তমান সরকারদলীয় সন্ত্রাসীরা মহাসমারোহে প্রকাশ্যে খুন-খারাবি ও ধর্ষণসহ নানা লোমহর্ষক ঘটনা ঘটিয়ে যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী সরকারের হস্তক্ষেপে দেশের বিচার ব্যবস্থা সম্পূর্ণরুপে ধ্বংস হয়ে গেছে। আইনের শাসন নিরুদ্দেশ হয়ে গেছে বলেই সন্ত্রাসীরা স্বাধীনভাবে অনাচারে লিপ্ত হয়ে পড়েছে। বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করার লাইসেন্স

দেয়া হয়েছে আওয়ামী সন্ত্রাসীদের। গণতন্ত্রকে ভুলুন্ঠিত করার মাধ্যমে জনগণের সকল আশা-আকাঙ্খাকে পদদলিত করে দেশকে একটি ভয়ঙ্কর স্বৈরতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত করা হয়েছে।’ আওয়ামী শাসকগোষ্ঠীর সকল অপকৌশল ও চক্রান্ত রুখে দিতে জনগণকে আরও ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান ফখরুল।

মির্জা ফখরুল বলেন, ১৯৯৪ সালে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী ট্রেনে গুলিবর্ষণের ঘটনায় সাজানো ও প্রহসনমূলক মামলায় পাবনার নিম্ন আদালতে বিএনপির সাজাপ্রাপ্ত নেতাকর্মীদের পরিবারগুলোকে সমবেদনা জানাতে যাওয়ার পথে পাবনায় কেন্দ্রীয় যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম নয়ন ও সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হাসানের নেতৃত্বে যুবদলের একটি কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের গাড়ীবহরের ওপর আওয়ামী সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের হামলা

ও নেতাকর্মীদেরকে আহত করার ঘটনায় আবারও প্রমানিত হয় যে, সরকারের পায়ের নীচের মাটি সরে গেছে বলেই তারা দলীয় সন্ত্রাসী ও দুস্কৃতিকারীদের ওপর ভর করেছে।

এই হামলায় যুবদল পাবনা জেলা শাখার সহ-সভাপতি মামুনুর রহমান লালন, আফজাল হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম সজিব ও সহ-সাধারণ সম্পাদক পান্নাসহ ১০ জন যুবদল নেতা গুরুতর আহত হন। বিএনপি মহাসচিব আওয়ামী সন্ত্রাসীদের দ্বারা পাবনায় সংঘটিত বর্বরোচিত ও নৃশংস ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং অবিলম্বে দোষী সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবি জানান।