বাগেরহাটের মোংলায় নানা আয়োজনে ফাদার মারিনো রিগনকে স্বরণ


অথর
বায়জিদ হোসেন   মোংলা, বাগেরহাট, খুলনা
প্রকাশিত :২১ অক্টোবর ২০১৯, ১১:২০ পূর্বাহ্ণ | পঠিত : 74 বার
  • 34
    Shares
বাগেরহাটের মোংলায় নানা আয়োজনে ফাদার মারিনো রিগনকে স্বরণ

নানা আয়োজনে মোংলায় পালিত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের অকৃত্রিম বন্ধু, শিক্ষানুরাগী, কবি ও সাহিত্যিক ফাদার মারিনো রিগন এর ২য় মৃত্যু বার্ষিকী। দিবসটি উপলক্ষে রবিবার( ২০ অক্টোবর) সকালে মোংলার হেলাবুনিয়া গ্রামে র্খৃষ্টীয় গির্জ্জা সংলগ্ন ফাদার রিগন এর সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান খৃষ্টান সপ্রদায়, শিশু কিশোর ও সর্বস্তরের শ্রেনী পেশার মানুষ। এরপর পর মারিনো রিগনের কর্মকান্ড নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় মোংলা পোট পৌরসভার মেয়র জুলফিকার আলী ও উপজেলা আওয়ামীলীিগেরে সভাপতি সুনিল কুমার বিশ্বাসসহ রাজনৈতিক,পেশাজিবী ও সাংস্কৃতিক সংঠনের নেতৃবিন্ধ ও স্কুল কলেজের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা।জন্মসূত্রে মারিনো রিগন ইতালি নাগরিক হলেও বাংলাদেশ সরকার ২০০৮ সালে তাঁকে সম্মানসূচক নাগরিকত্ব প্রদান করেন। এছাড়া ২০১২ সালে মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য বাঙালী জাতির শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতার নির্দশন স্বরূপ সরকার তাঁকে মুক্তিযুদ্ধ মৈত্রী সম্মাননা প্রদান করেন। লালনের সাড়ে তিনশো গান, গীতাঞ্জলিসহ রবীন্দ্রনাথের ৪৮টি বই এবং কবি জসিম উদ্দিনের নক্সীকাঁথার মাঠ, নির্বাচিত কবিতা, সোজন বাদিয়ার ঘাট ইতালি ভাষায় অনুবাদ করে বাংলা সাহিত্যে উচ্চ আসনে আসীন হয়ে আছেন ফাদার মারিনো রিগন। ২০১৭ সালের ২০ অক্টোবর ফাদার মারিনো রিগন চিকিৎসারত অবস্থায় ইতালিতে মৃত্যুবরণ করেন। রিগনের শেষ ইচ্ছা পুরনের জন্য ২০১৮ সালের ২১ অক্টোবর ফাদার রিগনের মরদেহ বাংলাদেশ সরকারের বিশেষ প্রচেষ্টায় ইতালি থেকে এনে মোংলার শেলাবুনিয়ায় রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়। ফাদার মারিনো রিগন ১৯২৫ সালে ৫ ফেব্রæয়ারি ইতালির ভিল্লাভের্লা গ্রামের এক সংস্কৃতিমনা পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। খ্রিস্টের মঙ্গলময় বানী প্রচারের উদ্দ্যেশ্যে নিয়েই তিনি তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে অর্থ্যাৎ আজকের বাংলাদেশে আসেন।

0 Comment

No Comment.