ভুতের ভয়ে ৩০ বছর ধরে ফাঁকা যে গ্রাম


অথর
অন্য ভূবণ নিউজ ডেক্স   ফিচার
প্রকাশিত :১১ এপ্রিল ২০১৯, ৫:৩০ পূর্বাহ্ণ
  • 23
    Shares
ভুতের ভয়ে ৩০ বছর ধরে ফাঁকা যে গ্রাম

ছোট একটি গ্রাম। পুরো গ্রামে রয়েছে মাত্র ৬টি পাথরের বাড়ি। দীর্ঘদিনের অযত্নে সেগুলোও রং হারিয়ে ধূসর হয়েছে। কিন্তু পুরো গ্রাম গত ৩০ বছর ধরে ফাঁকা পড়ে আছে। স্থানীয়দের মুখে মুখে পরিত্যাক্ত এই গ্রামটিকে ঘিরে নানা ভূতুড়ে গল্পও শোনা যায়। স্থানীয়দের মধ্যে বিশ্বাস, সন্ধ্যার পর এই গ্রামে নেমে আসে ভৌতিক কিছু। চারদিকের পরিবেশও থাকে থমথমে। এবার এই গ্রামটিকে বিক্রির জন্য একটি অনলাইন প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রির জন্য আলোচনা চলছে। যার দাম পড়েছে ৯৬ হাজার ডলার।

স্পেনের উত্তরে গ্যালিসিয়ায় রয়েছে আকোরাদা নামের ছোট এই গ্রাম। একটা সময় এখানে বসবাস করতেন ইগলেসিয়াস পরিবারের সদস্যরা। কিন্তু বিগত ৩০ বছর ধরে একেবারে ফাঁকা পড়ে আছে আকোরাদা গ্রাম। শুধুমাত্র ইগলেসিয়াস পরিবারের এক ৫৭ বছরের সদস্য তাদের এই গ্রামের দেখাশুনা করছে। কিন্তু কী এমন ঘটল যে নিজেদের গ্রাম ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হলেন ইগলেসিয়াস পরিবারের সদস্যরা? জানা গিয়েছে, পৃথিবী জুড়ে আর্থিক সংকটের কারণে বেঁচে থাকার তাগিদে ও উপার্জনের চেষ্টায় গ্রাম ছেড়ে শহরে বসবাস শুরু করেন অনেকে।

আধুনিক জীবনযাপনের তেমন সুযোগও ছিল না এখানে। স্পেনের আকোরাদার মতো একের পর এক প্রায় জনশূন্য হয়ে পড়ে ইউরোপের অনেক গ্রাম। আর আকোরাদা গ্রামকে ঘিরে যে সব ভৌতিক গল্প নিয়ে এর বর্তমান মালিক বলেন, আসলে বহু বছর ধরে পরিত্যক্ত থাকার ফলে গ্রামের চেহারাই বদলে গিয়েছে। লোকজনের বসবাস না থাকায় চারদিকের পরিবেশও স্বাভাবিক ভাবেই থমথমে।

তবে ইউরোপের এমন অন্তত ৪০টি পরিত্যক্ত গ্রাম কিছু বিদেশি প্রতিষ্ঠান কিনে নিয়েছেন। জায়গাগুলোর মালিকানা বদলের পর সেগুলোর পরিবেশও অনেকটাই বদলে গিয়েছে। গ্রামগুলোতে ফিরেছে প্রাণের স্পন্দন!

No Comment.