যেসব কাজ আল্লাহর পছন্দনীয়


অথর
ডোনেট বাংলাদেশ ডেক্স   ধর্ম ও জীবন
প্রকাশিত :৮ অক্টোবর ২০১৯, ২:২৩ অপরাহ্ণ
যেসব কাজ আল্লাহর পছন্দনীয়

আল্লাহর জিকির : জিকির আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের অন্যতম মাধ্যম। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ অধিক পরিমাণে জিকিরের আদেশ করেছেন।

ইরশাদ হয়েছে, হে ঈমানদাররা, তোমরা আল্লাহকে অধিক পরিমাণে স্মরণ করো। (সুরা আহজাব, আয়াত : ৪১) হজরত আবু হুরায়রা ও আবু সাঈদ আল খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত, তাঁরা উভয়ে বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, কোনো মনুষ্য দল আল্লাহর জিকির করতে বসলে আল্লাহর ফেরেশতারা নিশ্চয় তাদের ঘিরে নেন, তাঁর রহমত তাদের ঢেকে ফেলে এবং তাদের ওপর (মনের) প্রশান্তি বর্ষিত হয়। (অধিকাংশ সময়) আল্লাহ তাঁর নিকটবর্তীদের সঙ্গে তাদের স্মরণ করেন। (মিশকাত, হাদিস : ২২৬১)

ইবাদতে ধারাবাহিকতা : হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) একবার তাঁর কাছে আসেন,

তাঁর কাছে তখন এক মহিলা ছিলেন। আল্লাহর রাসুল (সা.) জিজ্ঞেস করলেন, ইনি কে? আয়েশা (রা.) উত্তর দিলেন, অমুক মহিলা—এ বলে তিনি তাঁর নামাজের উল্লেখ করলেন। আল্লাহর রাসুল (সা.) বললেন, থামো, তোমরা যতটুকু সামর্থ্য রাখো, ততটুকুই তোমাদের করা উচিত। আল্লাহর শপথ! আল্লাহ তাআলা ততক্ষণ পর্যন্ত (সওয়াব দিতে) বিরত হন না, যতক্ষণ না তোমরা নিজেরা পরিশ্রান্ত হয়ে পড়ো। আল্লাহর কাছে অধিক পছন্দনীয় আমল সেটাই, যা আমলকারী নিয়মিত করে থাকে। (বুখারি, হাদিস : ৪৩)

সময়মতো নামাজ আদায় : হজরত আবু আমর শায়বানি (রহ.) থেকে বর্ণিত, তিনি আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.)-এর বাড়ির দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, এ বাড়ির মালিক আমাদের কাছে বর্ণনা করেছেন, আমি আল্লাহর

রাসুল (সা.)-কে জিজ্ঞেস করলাম, কোন আমল আল্লাহর কাছে অধিক প্রিয়? তিনি বললেন, ‘যথাসময়ে নামাজ আদায় করা।

ইবনে মাসউদ (রা.) পুনরায় জিজ্ঞেস করলেন, অতঃপর কোনটি? আল্লাহর রাসুল (সা.) বললেন, অতঃপর জিহাদ ফি সাবিলিল্লাহ (আল্লাহর পথে জিহাদ)। ইবনে মাসউদ (রা.) বলেন, এগুলো তো আল্লাহর রাসুল (সা.) আমাকে বলেছেনই, যদি আমি আরো অধিক জানতে চাইতাম, তাহলে তিনি আমাকে আরো বলতেন। (বুখারি, হাদিস : ৫২৭)

আত্মীয়তার বন্ধন রক্ষা করা : আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) বলেছেন, আত্মীয়তার হক রহমানের মূল। যে তা সংরক্ষণ করবে, আমি তাকে সংরক্ষণ করব। আর যে তা ছিন্ন করবে, আমি তাকে (আমার হতে) ছিন্ন করব। (বুখারি, হাদিস : ৫৯৮৯)

আয়েশা (রা.) থেকে

বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘জ্ঞাতিবন্ধন আরশে ঝুলন্ত আছে এবং সে বলছে, ‘যে আমাকে অবিচ্ছিন্ন রাখবে, আল্লাহ তাঁর সম্পর্ক তার সঙ্গে অবিচ্ছিন্ন রাখবেন। আর যে আমাকে বিচ্ছিন্ন করবে, আল্লাহ তাঁর সম্পর্ক তার সঙ্গে বিচ্ছিন্ন করবেন। ’ (রিয়াদুস সালেহিন, হাদিস : ৩২৮)

সৎকাজে আদেশ অসৎকাজে নিষেধ : আর যেন তোমাদের মধ্য থেকে এমন একটি দল হয়, যারা কল্যাণের প্রতি আহ্বান করবে, ভালো কাজের আদেশ দেবে এবং মন্দ কাজ থেকে নিষেধ করবে। আর তারাই সফলকাম। (সুরা আলে ইমরান, আয়াত : ১০৪)

মানুষের উপকার করা : রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, আল্লাহর কাছে সবচেয়ে প্রিয় ব্যক্তি সে, যে মানুষের উপকারে আসে। আর আল্লাহর কাছে সবচেয়ে প্রিয় আমল

মুসলমানদের খুশি করা, তাদের বিপদাপদে পাশে দাঁড়ানো, তাদের পক্ষ থেকে ঋণ পরিশোধ করে দেওয়া, ক্ষুধার্থদের ক্ষুধা নিবারণের ব্যবস্থা করা। (আল মুজামুল আউসাত, হাদিস : ৬০২৬)