১২ ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি ১৭৬৫৮ কোটি টাকা


অথর
অর্থনৈতিক ডেক্স   ব্যবসা বানিজ্য
প্রকাশিত :৬ জানুয়ারি ২০২০, ৮:৩০ পূর্বাহ্ণ
  • 2
    Shares
১২ ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি ১৭৬৫৮ কোটি টাকা

উচ্চ খেলাপিঋণের কারণে প্রয়োজনীয় ন্যূনতম মূলধন সংরক্ষণে (সিএআর) ব্যর্থ হয়েছে ১২ ব্যাংক। গত সেপ্টেম্বর প্রান্তিক শেষে এসব ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৬৫৮ কোটি টাকা। এ সময়ে ব্যাংকিং খাতে সামগ্রিক মূলধন পর্যাপ্ততার হার হারও (সিআরএআর) সামান্য হ্রাস পেয়ে দাঁড়িয়েছে ১১ দশমিক ৬৫ শতাংশ। আগের প্রান্তিক জুন শেষে ১১ ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি ছিল ১৬ হাজার ১ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। আর মূলধন সংরক্ষণের হার ছিল ১১ দশমিক ৭৪ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। জানা গেছে, আন্তর্জাতিক নীতিমালার আলোকে ব্যাংকগুলোকে মূলধন সংরক্ষণ করতে হয়। বাংলাদেশে বর্তমানে ব্যাসেল-৩ নীতিমালার আলোকে ব্যাংকের ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদের ১০ শতাংশ অথবা ৪০০ কোটি

টাকার মধ্যে যেটি বেশি সে পরিমাণ মূলধন রাখতে হচ্ছে। কোনো ব্যাংক এ পরিমাণ অর্থ সংরক্ষণে ব্যর্থ হলে মূলধন ঘাটতি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। নিয়ম অনুযায়ী, ব্যাংকের উদ্যোক্তাদের জোগান দেয়া অর্থ ও মুনাফার একটি অংশ মূলধন হিসেবে সংরক্ষণ করা হয়। কোনো ব্যাংক মূলধনে ঘাটতি রেখে তার শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ দিতে পারে না। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন পর্যালোচনায় দেখা যায়, সেপ্টেম্বর প্রন্তিকে বেসরকারি খাতের দ্যা সিটি ব্যাংক নতুৃন করে মূলধন ঘাটতিতে পড়েছে। সবমিলে ১২ ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে রাস্ট্রায়ত্ত খাতের ৫টি ব্যাংক। এছাড়া বিশেষায়িত খাতের ২টি, বেসরকারি খাতের ৪টি ও বিদেশি খাতের একটি ব্যাংক রয়েছে। আগের প্রান্তিকে ১১ ব্যাংক মূলধন ঘাটতিতে

ছিল। এর মধ্যে রাস্ট্রায়ত্ত ৫টি, বিশেষায়িত ২টি, বেসরকারি ৩টি ও বিদেশী ১টি ব্যাংক ছিল।